যেভাবে বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা শুরু করবেন

0
73

 আমারা বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা যেভাবে খুজেবের করবো এবং শুরু করবো। ব্যবসা শুরুর আগে আমাদের অনেক কিছু জেনে নেওয়া উচিত যে কোন ব্যবসায় লাভ আছে আবার কোন ব্যবসায় লাভ নাই। আবার কিছু কিছু ব্যবসায় লাভ থাকলেও সেটা করা যাবে না অনেক দিক চিন্তা ভাবনা করে আপনাকে শুরু করতে হবে নয়তো লছের মুখ দেখতে হবে।

ব্যবসার জন্য কতটাকা লাগে

আপনি যেকোনো ব্যবসা শুরু করেন না কেন সবার আগে দরকার টাকা। কিছু কিছু ব্যাবসা আছে প্রচুর পরিমান ইনভেস্ট করতে হয় আবার কিছু আছে জাস্ট আইডিয়াকে কাজে লাগাতে হয় ঠিকমতো কাজে লাগাতে পারলেই অল্প টাকায় লাভজনক ব্যবসা শুরু করতে পারবেন। বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসার জন্য আপনার টাকার দিকে তাকাতে হবে যে আমার কাছে কত টাকা আছে।এখন ধরুন আপনার কাছে দুই লক্ষ টাকা আছে তাহলে আপনার এই টাকার মধ্যেই শুরু করতে হবে ব্যবসায় লাভ লছ আছেই আল্লাহ না করুক ব্যবসার শুরুতেই আপনার একটা ক্ষতি হয়ে গেলো সে ক্ষেত্রে কিন্তু আপনার অনেকটাই কষ্ট হয়ে জাবে ওখান থেকে উঠে দারাতে।তাই আমি বলছি এমন কোনো ব্যবসা শুরু করবেন না যেখানে লছ যাওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি। আপনার টাকার বাজেট এর মধ্যেই শুরুতে চিন্তা ভাবনা করবেন এতে সহজেই বুঝতে পারবেন আপনার লাভ লছ এবং খরচ এর হিসাব।আবার শুরুতেই অনেকে লোন নেওয়ার কথা চিন্তা করেন আমার মতে ব্যবসা শুরুর কিছুদিন পর এই চিন্তা করাটা অনেক ভালো কেননা তখন আপনি একটা লাইনে দাঁড়িয়ে জাবেন এবং অনেকটা আওতায় চলে আসবে।

বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা

আপনার এলাকা, মানুষের চাহিদা কোনদিকে বেশি সেদিকে লক্ষ রাখাটা জরুরী একটা সংক্ষেপে হিসাব দেই ধরুন একটা ব্যবসায় একটা প্রডাক্ট এ আপনি লাভ করেন পঞ্চাশ টাকা কিন্তু সারাদিনে সেল আসলো এক পিছ। সেম ভাবে অন্য আরেকটি ব্যবসায় লাভ করেন দশ টাকা কিন্তু সেল আসে প্রতিদিন দশ বিশ টি এর মানে কি লাভ কমহোক কিন্তু সেল বেশি দরকার তাহলে সেই ব্যবসায় লাভ থাকবেই। চাহিদা অঅনুযায়ী ব্যবসা করুন লাভজনক ব্যবসা ওই টাই।আমি নিম্নে কিছু চাহিদা এবং লাভজনক ব্যবসার আইডিয়া দিচ্ছি।

১। ওষুধ।  বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা এটা কারণ আমি আপনি বা আমাদের পরিবারের সবার জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ। যা মন না চাইলেও অনেক সময় ক্রয় করতেই হয়।সাধারণত এখনকার সময় এটা একটা অভ্যাস এ পরিনত হয়ে গেছে একটু কিছু হলেই কিন্তে হয়।

২। মনোহারী। অনেকর কাছে এই বিজনেস টা ভালো লাগে না কিন্তু একটা কথা আছে কথাটা ভেবে দেখবেন “যদি চলে মনোহারী পারেনা জমিদারি” কথাটার সাথে আমি একদম একমত কারন এই দোকান গুলোতে অনেক পদের পন্য পাওয়া যায়। তেল সাবান থেকে শুরু করে চাউল ডাউল এ টু জেট এক কথায় একটি সংসার চালানোর ক্ষেতে যা যা প্রয়োজন সব পাবেন। আর এই ধরনের ব্যবসা জত হবে ততই চলবে।চাইলে বুঝেশুনে আপনিও শুরু করতে পারেন।

৩। কসমেটিক্স। নাম সুনলেই বিবাহিত ছেলেদের মন্টা নষ্ট  হয়ে যায় প্রিথিবীতে বর্তমানে এমন কোন মেয়ে নাই যে কসমেটিক্স ব্যবহার করে না।আর মেয়েদের প্রডাক্টে হিউজ পরিমাণ লাভ করা সম্ভব। কারণ তারা অনেক চালাক প্রচুর দামাদামি করে যে কোন জিনিস কিনে থাকে আর দোকান্দার ও সেই ভাবমতই দাম চেয়ে বসে।

৪।ইলেকট্রনিকস। আপনি যদি খুব দ্রুতই লাভের মুখ দেখতে চান তাহলে এই ব্যবসা টি শুরু করতে পারেন তবে একটা কথা এই ব্যবসায় ইনভেস্ট একটু বেশি। আর সেই তুলনায় লাভ ও প্রচুর সেল ও হিউজ পরিমাণ লছের মুখ দেখতেই হবে না কারণ এর কোন প্রডাক্ট এর মেয়াদ উত্তির্ন হয় না।

৫।কাপড় বা ফ্যাশন। যুগ হিসেবে লাভবান একটি ব্যবসা কারন একটা সময় দেখা জেত এক পোশাক পড়ে মাসের পড় মাস পার করে দিত আর এখন একটা পোশাক কিছুদিন পড়েই সেটা বাতিল করে দেয়। আর এখনকার অনেকের প্রায় ৫ থেকে ১০ সেট অনেকের ক্ষেত্রে বেশিও ব্যবহার করে থাকে।

৬। টেকনোলোজিক্যল প্রডাক্ট। টেকনোলজির এই যুগে এই ধরনের প্রডাক্ট গুলো ব্যপক ভাবেই চলছে আপনি একটু অনলাইন শপগুলো ঘেটে দেখুন প্রডাক্ট গুলোর রিভিউ দেখুন কত মানুষ ক্রয় করতেছে। যেমনঃ ল্যপটপ, এন্ডোয়েট মোবাইল, ডি এস এল আর ক্যামারা,  ড্রোন ইত্যাদি সব আপডেট প্রডাক্ট টিকমত রাখতে পারলে। অনেক লাভবান হউয়া সম্ভব।তবে এটাতেও ইনভেস্ট একটু বেশিই করতে হবে।

৭।কপিহাউজ বা ফাস্ট ফুড।দিনে অন্তত একবার হলেও বাহিরে ঘুরতে জান এবং এই ধরনের দোকানগুলোতে যেতেই হয়।আর একন মানুষ বেশির ভাগ সময় বিকেলের দিকে এই দোকান গুলতে খাওয়া দাওয়া করে থাকে।

৮।মেশিনারীজ। যদিও কালির ব্যবসা কিন্তু তার পরেও অনেক লাভ জনক আপনার এলাকা বা চাহিদার উপর এই ব্যবসাটি শুরু করতে হবে । এমনি এক জায়গায় শুরু করলে লাভবান হওয়া যাবে না । এখানে সব চেয়ে মজার বিষয় হচ্ছে লছ নাই লাভ না হলো কিন্তু লছ হবেনা ।কিছু কিছু শহরে জমজমাট ভাবে এই বিজনেছ গুলি চলছে যেমনঃ বগুড়া,যশোর,ধোলাইখাল সহ অনেক যায়গায়।

৯। ফটোকপি এন্ড ষ্টুডিও। চালান ছাড়া ব্যবসার কথা বেললেই এই ব্যবসা অল্প খেরচে ব্যপক লাভজনক কলেজ বা স্কুল প্রতিষ্ঠানের সামনে এই ব্যবসাটি শুরু করলে খুবিদ্রুত লাভবান হতে পারবেন। এর পাশাপাশী অনলাইনের জাবতীয় কাজ সাথে কিছু বই খাতা ইত্যাদি প্লান করে সুরু করলে ভালো একটা রেজাল্ট পাবেন আশাকরি ।

১০।প্রেজ বা প্রিন্টিং। একটি বিগ এবং মান সম্মত ব্যবসা এখান থেকেও ভালো উপর্জন করা সম্ভব হবে । তবে এখানে শুরুতে মোটামোটি ভালো পরিমান ইনভেস্ট করতে হবে এবং এই ব্যবসা শুরু কেরার আগে অনেক বার ভেবে দেখতে হবে যে আপনার এলাকায় বা যেখানে শুরু করতে ইচ্ছুখ সেখানে চলবে কি না ।

উপরোক্ত ব্যবসা গুলি নিয়ে ভেবে দেখতে পারেন আমরা তিবে হ্য অবশ্যই আপনাকেই প্রথমে ভেবে দেখতে হবে । যে কোন ব্যবসার সাথে আপনি সেটেল হতে পারবেন কিনা বা সেটাপ খাবে কিনা । যদি আপনার সাথে না জয় তাহলে তাহলে অন্য ব্যবসা নিয়ে ভাবুন মনের সাথে না মিললে জোর করে কিছু করার দরকার নাই কারন ডিসিশন আপনার ইনভেস্ট ও আপনার কেই এসে লাভ লসের ভাগিদার হবে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here