১০ টি গুরুত্বপূর্ণ ফাইভার স্পেশাল টিপস আশা করি কাজে দিবে।

0
108

আজকে ফাইভার স্পেশাল টিপস নিয়ে কথা বলতে যাচ্চি আশা করি অনেক কাজে দিবে। ফাইভারে কাজ করার আগে সব সময় একটা কথা মনে রাখবেন কখনো গিগ কপি করবেন না এতে আপনার গিগ র‍্যাংক করবে না।

  1. কিভাবে শুরু করবেন এটাই তো প্রশ্ন? প্রথমে নিজে কে নিয়ে ভাবুন আপনি কি কি করতে পারেন।এরপর যে বিষয় গুলিতে এক্সপার্ট সে বিষয় নিয়ে একটি ফাইভারে একাউন্ট খুলুন অবশ্যই সঠিক তথ্য দিয়ে কোনো ভাবেই ভুল তথ্য দেওয়া যাবে না। পরে ভেরিফাই করতে আবার সমস্যা হবে। এরপর আপনার কাজের উপর ভিত্তি করে কিছু স্কিল এড করুন। তবে সব সময় খেয়াল রাখবেন যে বিষয় নিয়ে কাজ করবেন সেই রিলেটেড যেন হয়।
  2. এবার গিগ তৈরি করুন গিগ রিলেটেড টাইটেল ডিসক্রিপশন দিন ।অবশ্যই ডিসক্রিপশন বড় হতে হবে ।
  3. গিগ ‍সুন্দর্য্য বৃদ্ধির জন্য ভিডিও যুক্ত করুন এতে সেল পাওয়ার সম্ভবনা অনেক বেশি থাকে । ৪. গিগ র‌্যাংক করার জন্য ভালো ভাবে এস ইও করুন বেশি বেশি অপ পেজ এস ই ও করবেন এতে দ্রুত সেল পাওয়ার সম্ভবনা থাকে।
  4. কাষ্টোমার এস এম এস দিলে দ্রুত রিপ্লাই দিন এবং সুন্দর বা স্পষ্ট ভাবে কথা বলুন । কথা বলে যেন বুঝতে পারে আপনি প্রফেশনাল ।
  5. নিজের দুর্বলতা কেখনো কাষ্টোমারকে বুঝতে দিবেন না । এতে কাজ হারানোর ভয় বেশি ।
  6. কাজ নেওয়ার পূবে অবশ্যই ক্লাইন্টের থেকে বিস্তারিত জেনে নিবেন । এবং কাষ্টোমারের মনের মতো করে কাজ করে দিবেন। যেনো পেরবর্তীতে যে কোন কাজ করাতে আপনাকেই নক করে।
  7. ভায়ার রিকুয়েস্ট দেওয়ার সময় দেখেসুনে দিবেন । যে আপনি কাজটি করতে পারেন কিনা বা করে দিতে পারবেন কিনা । যদি কঠিন লাগে তাহলে দরকার নাই ।
  8. অবশ্যই নতুন অবস্থায় সবসময় অনলাইনে থাকার চেষ্টা করবেন । এক ঘন্টার মধ্যে রিপ্লাই  দেওয়ার চেষ্টা করবেন ।
  9. একটা দুইটা গিগ নিয়ে কাজ হবে না যেহেতু নতুন অবস্থায় ৮ টি তৈরি কেরতে দেয় সেক্ষেত্রে ৮ টি গিগ ই তৈরি করবেন।
  10. উপরোক্ত সকল প্রকার নিয়োম গুলো মেনে কাজ করবেন দেখবেন খুব দ্রুত সেল শুরু হচ্ছে ।

সোস্যাল মিডিয়া মার্কেটিং টিপস।

কারন সোস্যাল মিডিয়া প্লাট ফ্রমে অনেক মানুষ এক্টিভ থাকে আর সেখানে কিন্তু বায়ার থাকাও সাভাবিক কিছু তাই সঠিকভাবে ভাবে আমরা আমাদের গিগ মার্কেটিং করতে পারলে খুবি দ্রুত র‍্যাংক করবে। তবে হ্যা এখানে একটি কথা আছে সেটা হল নেচারালী আমাদের কাজ করতে হবে কোনো প্রকার স্পামিং করা যাবে না।যদি স্পামিং করি তাহলে ফেসবুক একাউন্ট নষ্ট হয়ে যেতে পারে তাই আগে থেকে বলে রাখাই ভালো সুধু তাই নয় আপনি যখন স্পামিং করবেন আর এটা যদি ফাইভার কোন ভাবে বুঝে ফেলে তাহলে আপনার জন্য র‍্যাংক করাটা অনেক কঠিন হয়ে যাবে। তাই আমি বলি সময় টাকে সঠিক কাজে লাগান শুরু থেকেই নিজেকে প্রফেশনাল হিসেবে গড়ে তুলুন।
যেভাবে ফেসবুক গ্রুপের মাধ্যমে আপনার গিগ প্রমোট করবেন।

বর্তমানে ফাইভার রিলেটেড অনেক গ্রুপ আছে যেখানে আপনি খুব সহজে আপনার গিগ প্রমোট করতে পারবেন। এবং এই গ্রুপ গুলিতে সবচেয়ে মজার বিষয় হচ্ছে ফেভারিট এক্সচেঞ্জ আমরা জানি ফাইভারে একটি অপশন আছে ফেভারিট নামে আর এটি কিন্ত র‍্যাংক এর একটি ফ্যক্টর। জার যত বেশি ফেভারিট হবে তার গিগ র‍্যাংক করার সম্ভাবনা তত বেশি থাকবে কারন ফেভারিট বেশি হলে ফাইভার বুজতে পারে এই গিগটি অনেকের কাছে পছন্দনিও। তাই এক্সচেঞ্জ গুপ গুলিতে গিগ শেয়ার করলে অনেকে আপনার গিগটি ফেভারিট করে রাখবে। এবং কমেন্ট বক্সে তাদের গিগ লিংক দিবে সেখান থেকে আপকে অন্যর গিগটি ফেভারিট করে রাখতে হবে। এভাবে প্রতিদিন ৫/১০ টি করে এক্সচেঞ্জ করলে কিছুদিনের মধ্যেই অনেক হয়ে যাবে তখনই দেখতে পারবেন আপনার গিগও র‍্যাংক এ আসতে শুরু করে দিয়েছে।

ফাইভার স্পেশাল টিপ্স

অবশ্যই একটি কথা মনে রাখবেন এক্সচেঞ্জ বা গিগ প্রমোট করার পূর্ব ভালো ভাবে দেখে নিবেন আপনার গিগ তৈরি করা ঠিক আছে কিনা। কারন সবার পুর্বে ভালো মানের গিগ তৈরি করা জরুরী। এত কষ্ট করে সব কিছুই করলেন কিন্তু গিগ ভালো হয়নাই তাহলে কিন্তু কোন ভাবেই সেল আসবে না।তাই বলছি সঠিক ভাবে কাজ করুন দেখবেন কিছুদিন পড় অটোমেটিক ভাল একটা পজিশন পেয়েছেন। হ্যাপি ফ্রিল্যান্সিং।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here