কেন ওয়েবসাইট তৈরি করবেন? একটি ওয়েবসাইট থেকে মাসে কতটাকা ইনকাম করা সম্ভব

1
82

হ্যা অনেকেই জানিনা একটি ওয়েবসাইট থেকে মাসে কতটাকা ইনকাম করা সম্ভব হবে। আর সেটা সত্য কিনা সে সকল বিষয় গুলো তুলে ধরার চেষ্টা করবো। একটা কথা সবসময় মনে রাখবেন আমাদের এই সাইটে কখনো ভুল নির্দেশনা প্রকাশ করা হবে না। আপনি একজন নতুন হিসেবে আমাদের পোস্ট গুলি সময় নিয়ে পড়তে পারেন এতে আপনি অনলাইনের উপার্জনের সঠিক গাইড পেয়ে যাবেন ইন্সাল্লাহ। প্রথমেই আমরা কথা বলবো।

কেন ওয়েবসাইট তৈরি করবেন

 মানুষ এখন অনেকটাই গুগলের উপর নির্ভরশীল কেননা একটা সময় কোনো তথ্য জানার জন্য যাওয়া লাগতো সেই বিষয়ের একজন দক্ষ মানুষের কাছে। দীন দীন প্রযুক্তি আপডেট হচ্ছে অনেক কিছুই সহজ হয়ে আসছে। এখন ঘরে বসেই আপনার সেই তথ্য জেনে নিতে পারবেন উদাহরণঃ ধরুন আপনার কম্পিউটারের হার্ডডিস্ক এর কেবুল খুলে গিয়েছে,  কিভাবে লাগাতে হয় সেটা আপনি জানেন না, এখন আপনি কি করবেন?  কিছু বছর আগে হলে নিশ্চিত আপনি আপনার কাছের কোন মিস্ত্রির কাছে নিয়ে যেতেন আর এখন ঘরে বসে গুগলে সার্চ করুন যে কিভাবে হার্ডডিস্ক এর কেবুল লাগানো যায় সাথে সাথে লক্ষ লক্ষ উত্তর আপনার সামনে হাজির করবে গুগল। আর এই যে উত্তর গুলি আপনি পাচ্ছেন এগুলো কারো না কারো ওয়েবসাইট। এখানে আপনার প্রশ্ন রিলেটেড যেই উত্তর টা গুগল ভালো মনে করে সেই উত্তর টা দেখবেন সবার উপরে নিয়ে এসেছে। আর আপনি কিন্তু ঘরে বসে সহজেই সেই উত্তর পেয়ে যাচ্ছেন।এখন বলবেন আমি প্রশ করলাম গুগলকে কিন্তু মানুষের ওয়েব সাইট কেন গুগল দিবে সে নিজে দিলেও তো পারতো?

হ্যা পারতো তবে এখানে অনেক কথায় আছে, সবাই জানি গুগল কিন্তু সার্চ ইঞ্জিন তার কাজ যে কেউ সার্চ করুক না কেনো সে সেই রিলেটেড উত্তর কে খুজে বের করে আপনার সামনে হাজির করানো সে এমন ভাবে কাজ করতেছে যা সবার উপকারে আসবে এবং এখান থেকে অনেকে আবার উপার্জন ও করতে পারবে। গুগলের মত অনেক সার্চ ইঞ্জিন আছে যেমনঃ বিং,আসক,ইয়াহু, ইত্যাদি তবে এখানকার মধ্যে শক্তিশলী ও জনপ্রিয় হচ্ছে গুগল। এরা কিভাবে কাজ করে ধরু আপনি আজকে একটা ওয়েবসাইট খুললেন টেকনোলজি টিপস শেয়ার করার জন্য। সাইট রেডি করে কিছু টিপস আপনার সাইটে পাবলিশ করলেন।এর পর আপনি এটা বিভিন্ন সার্চ ইঞ্জিনদেরকে জানালানেন যে আমার এই ওয়েবসাইটটি এই রিলেটেড এবং এখানে এগুলো পাবলিক করা হয়।  তখন এরা আপনার সাইট ভিজিট করবে এবং কতোগুলো টিপস শেয়ার করেছেন সেগুলো দেখবে এবং কেমন তথ্য দিয়েছেন সেটার উপর নির্ভর করে আপনাকে একটা পজিশন দিবে এখন গুগলে কেউ এসে যদি সার্চ করে আর তখন যদি গুগল আপনার পোস্টটি ভালো মানের হয় তখন সবার সামনে আপনার টাই দেখাবে আর যে সার্চ করলো সে আপনার সাইটে যাবে এবং তার তথ্য নিয়ে সে চলে যাবে। এই যে সে সার্চ করলো আপনার সাইটে আসলো এটার কারনে তিনজনই লাভবান হইলেন। যে আসলো সে তার সঠিক তথ্য পেলো গুগল আপনার সাইটে কিছু এড রাখছে সেখান থেকে আপনাকে কিছু দিলো সেও কিছু পেলো এতে সবারই লাভ হলো।

ওয়েবসাইট থেকে মাসে কতটাকা ইনকাম করা সম্ভব

আমরা যেকোন কাজ শুরু করার আগেই চিন্তা করি সেখান থেকে কি পরিমান ইনকাম করা সম্ভব হবে । হ্যা এটা ভালো চিন্তাভাবনা তাবে কিছু বিষয় আছে সেখানে আপনার দক্ষতা নিয়ে আগে চিন্তা ভাবনা করতে হবে যে আমি কি পারবো । আমি কেমন কাজ জানি আমার কাজটি সঠিক কিনা এছাড়াও প্রয়োজনে শেখার জন্যও আপনাকে সময় শ্রম টাকা ব্যায় করতে হবে ।তারপরেও যদি আপনি এক্সপার্ট হতে পারেন তাহলে টাকা আপনার পিছনে ছুটবে আর ওয়েবসাইট হলে তো কথাই নাই একটি ওয়েবসাইট থেকে মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা ইনকাম করা সম্ভব তবে বলছি না আপনি পারবেন । আপনাকে পারতে হলে প্রথমে সেই লেভেলের কাজ জানতে হবে তারপর আসতে আসতে চালিয়ে যেতে হবে । এখন একটি কথা আপনি এর আগে কখনো ওয়েবসাইট নিয়ে কাজ করেননি তাহলে আপনি শুরুতেই কিভাবে ইনকাম করবেন ।সাইট তৈরি করলেইতো আর টাকা আসবে না সাইট তৈরি করে সেটাকে দার করাতে হবে আর এর জন্য যা যা প্রয়োজন সবকিছই করতে হবে। আপনি শেখার জন্য একটি সাইট তৈরি করুন না আর সেটাকে আসতে আসতে দার করান এন্ড শিখেন একদিন দখেবেন এই সাইট থেকেই ভালো পরিমান ইনকাম শুরু হইছে । বাংলাদেশের কিছু টপ লেভেলের সাইটগুলো দেখুন তারা দৈনিক লক্ষ লক্ষ টাকা আয় করছে যেমন: প্রথমআলো,কালেরকন্ঠ, টেকটিউনস সহ অনেক সাইট আছে যারা দৈনিক হাজার হাজার টাকা ইনকাম করে । এখন কথা হচ্ছে যে তারা এক সময় কিন্তু তাদের সাইট থেকে ইনকাম করতে পারে নাই আর এখন তাদের অনেক জনপ্রিয়তা এবং ইনকাম ও প্রচুর পরিমাণ ।তাই তাদের মত আসতে আসতে আপনাকেও সেই ধর্জ্য নিয়ে কাজ করতে হবে । ঠিকমত ছয়মাস এক বছর কাজ করুন দেখবেন তখন ইনকাম কারে কয় । ওয়েবসাইট থেকে মাসে কতটাকা ইনকাম করা সম্ভব তার কিছু উদাহরণ আমি তুলে ধরছি । ধরুন আপনি গুগল এডসেন্স নিয়ে কাজ করেন এখন তারা ক্লিক এ ইনকাম দেয় আপনার সাইটে যদি দৈনিক এক হাজার ভিজিট হয় সেখান থেকে নূন্যতম ২০ থেকে ৩০ টা ক্লিক পরবে । এখন আনার সিপিছি যদি ০.১০ করে থাকে তাহলে আপনার ইনকাম হবে ৩০*০.১০=৩.০০ অর্থাৎ তিন ডলারের মত এখানে একটা কথা চিন্তা করুন যদি দৈনিক ৫০০০ ভিজিট হয় তাহলে আপনার ইনকাম দারাবে দৈনিক ১৫ ডলারে । এখানে আরেকটি কথা হলো আমর যে হিসাবটি করলাম সেটি সুধু মাত্র বাংলাদেশী ভিজিটরকে টার্গেট করে । আপনি যদি ইউ এস কে টার্গেট করে কাজ করেন তাহলে আপনার এই ইনকাম এসে দারাবে ৪০ থেকে ৫০ ডলারে এর মানে কি আমরা জানি ইউ এস এর সিপিসি রেট সব সময় বেশি থাকে । আর হ্যা ইনকামের কথা শুনেই পাগলের মত ছুটা যাবে না ইনকাম করা এতোটা সহজ নয় এখানে অনেক পরিশ্রম আছে ।যদি আপনি সেই পরিশ্রম করে সফলতা পেতে চাঁন তবেই আপনি একটি সাইট নিয়ে এগতে পারেন হ্যা একটা কথা সবসময় মাথায় রাখবেন এক দিন দুই দিনের জন্য একটি ওয়েবসাইট না এটা লাইফটাইমের কথা চিন্তা করে তৈরি করতে হবে ।

ওয়েবসাইট র‌্যাংক করানোর কিছু কৌশল

প্রথমেই সুন্দর ভাবে ভালো মানের ডিজাইনার দারা সাইট ডিজাইন করা । এস ই ও ফ্রেন্ডলি কন্টেন্ট বা আর্টিকেল পাবলিশ করা । অনপেজ ও অফপেজ এস ই ও করা সহ যাবতীয় কাজ সঠিকভাবে করতে পারলেই দুই তিন মাসে সাইট র‌্যাংকে চলে আসবে । তবে হ্যা এখানে একটি গুরুত্বপূর্ন কথা হচ্ছে কন্টেন্ট নিয়ে আমরা সকলেই সাইট তৈরি করতে পারি কিন্তু কিছু কিছু কজের জন্য আমরা সাইট দা করাতে পারি না তার মধ্যে একটা হচ্ছে কন্টেন্ট অল্পকিছু কন্টেন্ট দিয়েই বলি ভাই ইনকাম নাই ইনকাম নাই । আরে ভাই আপনার একটা আরটিকেল র‌্যাংক করতেই মিনিমাম দুই তিন মাস সময় লেগে যায় কিছু কিছু সময় এর চেয়ে বেশি আর সেটা র‌্যাংক হওয়ার পরতো আপনাকে ইনকামের চিন্তা করতে হবে ।আর এই শুরুর দুই তিন মাসে আপনি ১০০+ ভালো মানের আর্টিকেল বা কন্টেন্ট দিন । এরপর দেখতে পারবেন যে আপনার সাইটের ইনকাম কারে কয় ।

সময় নিয়ে একটি সাইট দার করান দেখবেন এই সাইট একদিন আপনার ইনকামের রাস্তা হবে ।সাইট করে কখনো ভেঙ্গে পরবেন না সঠিকভাবে কাজ করতে থাকুন আশা করি ভালো কিছু পাবেন ।

1 COMMENT

  1. অনলাইন ইনকাম সম্পর্কে এতো সুন্দর করে আগে কেউ বুঝাই নি,, আপনাকে অনেক অনেক বেশি ধন্যবাদ স্যার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here